সেকশনস

‘জ্বালানি খাতে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে’

আপডেট : ১৩ আগস্ট ২০২০, ১৮:৪১

‘বঙ্গবন্ধু একটি বিষয় বুঝতে পেরেছিলেন যেগুলো আমাদের মৌলিক চাহিদা মেটাবে সেগুলোকে জাতীয়করণ করতে হবে। যুদ্ধ বিধ্বস্ত একটি দেশে সেই সময় পাঁচটি গ্যাস ক্ষেত্র কিনে নেওয়া অনেক বড় সাহসের বিষয় ছিল। জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই তার লক্ষ্য ছিল। বর্তমান সরকার তারই পথ অনুসরণ করছে। জ্বালানি খাতে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।’ বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) অনলাইনে ফোরাম ফর এনার্জি রিপোর্টাস বাংলাদেশ (এফইআরবি) আয়োজিত এক সেমিনারে বক্তারা এসব কথা বলেছেন।

জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস উপলক্ষে ইন্ডিপেন্ডেন্ট পাওয়ার প্রডিউসার্স অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশের (বিপ্পা) সহযোগিতায় সেমিনারটি আয়োজন করা হয়।

এফইআরবির চেয়ারম্যান অরুণ কর্মকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন এফইআরবির নির্বাহী পরিচালক শামীম জাহাঙ্গীর। সেমিনারে বিদ্যুৎ ও জ্বালানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, ‘আজকে যখন আমি কাগজপত্র ঘাটি, তখন অবাক হয়ে ভাবি, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর এত অল্প সময়ে এত বেশি কাজ কীভাবে করেছিলেন বঙ্গবন্ধু।’ তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু একটি বিষয় বুঝতে পেরেছিলেন,যেসব বিষয় আমাদের মৌলিক চাহিদা মেটাবে, সেগুলোকে জাতীয়করণ করতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘তখন সারাবিশ্বেই ঠান্ডা লড়াই চলছিল। তখন মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের উন্নত অনেক দেশ আমাদের সমর্থন দেয়নি। সেই সময়ে ব্রিজ নাই রাস্তা নেই যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ— সেই সময় পাঁচটি গ্যাস ক্ষেত্র কিনে নেওয়া অনেক বড় সাহসের বিষয়। এই সাহস দিয়ে তিনি একটা ভিত রচনা করে দিয়েছিলেন।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সংকটের সময় সাহসী সিদ্ধান্ত নেওয়া বঙ্গবন্ধু শিখিয়েছিলেন। আমরা এখন শতভাগ বিদ্যুতায়ন করছি। এতে দেশের অর্থনীতি বিকশিত হচ্ছে। শহরের মানুষ নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাচ্ছে। ভৌগোলিক কারণে গ্রামে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাচ্ছে না। তবে আমরা চেষ্টা করছি।’

নসরুল হামিদ বলেন, ‘পৃথিবীতে মাত্র ১০টা দেশ আল্ট্রাসুপার ক্রিটিক্যাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করেছে। আমরাও আল্ট্রাসুপার ক্রিটিক্যাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করেছি। আমরা সময় অপচয় না করে দ্রুত কাজ করছি।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর বঙ্গবন্ধুর একান্ত সচিব ড. মো. ফরাসউদ্দিন  বলেন, ‘‘১৯৫৬ সালে সিলেটের হরিপুরে গ্যাস পাওয়া গেলো। তখন বঙ্গবন্ধু পূর্ববাংলার শিল্পমন্ত্রী। তখনই তিনি বুঝতে পেরেছিলেন বাংলাদেশের মাটির নিচে অমূল্য সম্পদ লুকিয়ে আছে। বঙ্গবন্ধু যখন মধ্যপ্রাচ্যে গিয়েছিলেন তখন বঙ্গবন্ধুকে বলা হয়েছিল— ‘তোমার  দেশে তেল, গ্যাস এবং চিংড়ি আছে।’ প্রথম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় বিদ্যুৎ, জ্বালানি এবং খনিজসম্পদ অন্তর্ভুক্ত ছিল। তখন জাতির পিতা ১২ ভাগ এই খাতে বিনিয়োগ করেছিলেন।’’

তিনি বলেন, ‘১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু পল্লি বিদ্যুতায়ন করার জন্য আরইবি গঠনের নির্দেশ দিয়েছিলেন।’ ড. ফরাসউদ্দিন  বলেন, ‘কোভিড পরিস্থিতিতে আমাদের অর্থনীতি পথ হারায়নি। আমাদের প্রবৃদ্ধি বেড়েছে আমাদের মাথাপিছু আয়ও বেড়েছে। অর্থনৈতিক উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে।’

বিপ্পা প্রেসিডেন্ট ইমরান করিম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের বেসরকারি খাতকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে অংশ গ্রহণের সুযোগ করে দিয়েছেন। বেসরকারি খাত সরকারের সঙ্গে কাজ করে দেশের বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান করেছে। আমরা ভবিষ্যতও দেশের উন্নয়নে কাজ করার জন্য বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে কাজ করবো।’

মূল প্রবন্ধে এফইআরবি’র নির্বাহী কমিটির সদস্য মোল্লাহ আমজাদ হোসেন বলেন, ‘এখন সাগরে গ্যাস অনুসন্ধানের চেয়ে এলএনজি আমদানি লাভজনক। এরপরও দেশের জ্বালানি সম্পদ অনুসন্ধানে উদ্যোগ নেওয়া উচিত।  দেশের বিদ্যুৎ খাতেও জ্বালানির সংমিশ্রণে সরকারের নজর দেওয়া উচিত।’ তিনি বলেন, ‘পাওয়ার সিস্টেম মাস্টার প্ল্যান পর্যালোচনা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া প্রয়োজন।’

বাপেক্সের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোর্তজা আহমেদ চিশতী বলেন, ‘বাপেক্সের সাগরে কাজ করার কোনও অভিজ্ঞতা নেই। এজন্য বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে কাজ করার সুযোগ করতে হবে। এখন তেলের যে দাম কমেছে তাতে অনুসন্ধানে নতুন কোম্পানি পাওয়া কঠিন। এজন্য অতীতে যারা আমাদের সাগরে কাজ করার আগ্রহ দেখিয়েছে, তাদের সঙ্গে আলোচনায় যেতে হবে। এভাবে দরপত্রের বাইরে গিয়ে দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় বসতে হবে।’

বিডিবির সাবেক চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ বলেন, ‘স্বাধীনতার পরই বিদ্যুৎ উৎপাদনে নজর দেন বঙ্গবন্ধু। তখন রাশিয়ার সঙ্গে বঙ্গবন্ধু আলোচনা শুরু করেন। রাশিয়া আমাদের তিনটি বিদ্যুৎকেন্দ্র দিয়েছিল। একইসঙ্গে দেশের বড় বড় সবখানে সাবস্টেশন নির্মাণ করে দিয়েছিল তারা। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের পর সেই ধারাবাহিকতা আর রক্ষা করা সম্ভব হয়নি। এরপর বর্তমান সরকার দায়িত্ব নেওয়ার পর আবারও বিদ্যুৎ উৎপাদনে গুরুত্ব দিয়েছে। এতে দেশের শতভাগ মানুষের কাছে এখন বিদ্যুৎ পৌছে দেওয়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করছে।’

জ্বালানি বিশেষজ্ঞ সালেক সুফিসহ সেমিনারের আরও বক্তব্য দেন এফইআরবির সদস্য শাহনাজ বেগম, আজিজুর রহমান, মোজাহেরুল হক রুমেন।

 

/এসএনএস/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

‘ই-নামজারি ও মিসকেস মামলার শুনানি হবে ভিডিও কনফারেন্সে’

‘ই-নামজারি ও মিসকেস মামলার শুনানি হবে ভিডিও কনফারেন্সে’

প্রধানমন্ত্রীর দফতরের নাম ভাঙিয়ে চাঁদাবাজি, এশিয়ানের শিক্ষার্থী বহিষ্কার

প্রধানমন্ত্রীর দফতরের নাম ভাঙিয়ে চাঁদাবাজি, এশিয়ানের শিক্ষার্থী বহিষ্কার

বন্ধুদের নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা

বন্ধুদের নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা

বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ফ্রান্সে গিয়ে জড়ালো জঙ্গিবাদে!

বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ফ্রান্সে গিয়ে জড়ালো জঙ্গিবাদে!

নাসিরনগরে ধর্ষণ ঘটনার প্রতিবেদনে গরমিল, ১৩ জনকে তলব

নাসিরনগরে ধর্ষণ ঘটনার প্রতিবেদনে গরমিল, ১৩ জনকে তলব

চতুর্থ ধাপের পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী ৩২৯০

চতুর্থ ধাপের পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী ৩২৯০

দেশের শেয়ার বাজারের উন্নয়নে কাজ করবে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ

দেশের শেয়ার বাজারের উন্নয়নে কাজ করবে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ

‘আন্তর্জাতিক বাজারে অদক্ষ কর্মীর চাহিদা কমে আসছে’

‘আন্তর্জাতিক বাজারে অদক্ষ কর্মীর চাহিদা কমে আসছে’

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে চীনসহ অন্য দেশগুলোর আরও সম্পৃক্ততা চায় বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে চীনসহ অন্য দেশগুলোর আরও সম্পৃক্ততা চায় বাংলাদেশ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা শুরু

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা শুরু

রফতানি শিল্পের জন্য এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন

রফতানি শিল্পের জন্য এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন

সর্বশেষ

নীলফামারীজুড়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, হাসপাতালে বাড়ছে রোগী

নীলফামারীজুড়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ, হাসপাতালে বাড়ছে রোগী

বাউফলে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

বাউফলে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

আগুন তাপাতে গিয়ে অন্তঃসত্ত্বা নারী দগ্ধ

আগুন তাপাতে গিয়ে অন্তঃসত্ত্বা নারী দগ্ধ

উপজেলা পরিষদকে কার্যকর করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

উপজেলা পরিষদকে কার্যকর করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

বৃহত্তর চান্দগাঁও-মোহরাকে আধুনিক উপশহর করার প্রতিশ্রুতি ডা. শাহাদাতের

বৃহত্তর চান্দগাঁও-মোহরাকে আধুনিক উপশহর করার প্রতিশ্রুতি ডা. শাহাদাতের

হকারদের সুস্পষ্ট নীতিমালা করে পুনর্বাসন করা হবে: রেজাউল করিম চৌধুরী

হকারদের সুস্পষ্ট নীতিমালা করে পুনর্বাসন করা হবে: রেজাউল করিম চৌধুরী

কাউকেই নির্বাচনি সহিংসতা ঘটাতে দেওয়া হবে না: সিএমপি কমিশনার

কাউকেই নির্বাচনি সহিংসতা ঘটাতে দেওয়া হবে না: সিএমপি কমিশনার

নীলফামারীতে পৃথকভাবে ৩৫০ জনের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

নীলফামারীতে পৃথকভাবে ৩৫০ জনের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

জোহরা আলাউদ্দিন এমপি করোনায় আক্রান্ত

জোহরা আলাউদ্দিন এমপি করোনায় আক্রান্ত

ইয়াবা ও ফেনসিডিল উদ্ধার, কারবারি গ্রেফতার

ইয়াবা ও ফেনসিডিল উদ্ধার, কারবারি গ্রেফতার

কলাবাগানে কিশোরীকে ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে সহপাঠীদের দেয়াল লিখন

কলাবাগানে কিশোরীকে ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে সহপাঠীদের দেয়াল লিখন

বাস-ট্রাক মুখোমুখি, চালক নিহত

বাস-ট্রাক মুখোমুখি, চালক নিহত

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

দেশের শেয়ার বাজারের উন্নয়নে কাজ করবে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ

দেশের শেয়ার বাজারের উন্নয়নে কাজ করবে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ

রফতানি শিল্পের জন্য এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন

রফতানি শিল্পের জন্য এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন

আর্জেন্টিনার সয়াবিন যাবে চীনে, বিপাকে বাংলাদেশ

আর্জেন্টিনার সয়াবিন যাবে চীনে, বিপাকে বাংলাদেশ

গ্রীষ্মে ফের লো ভোল্টেজে পড়বে উত্তরাঞ্চল

গ্রীষ্মে ফের লো ভোল্টেজে পড়বে উত্তরাঞ্চল

ডিএসইতে মূলধন বাড়লো ২ লাখ কোটি টাকা

ডিএসইতে মূলধন বাড়লো ২ লাখ কোটি টাকা

ব্যয় বাড়লেও মানুষ সঞ্চয় করছে বেশি

ব্যয় বাড়লেও মানুষ সঞ্চয় করছে বেশি

সর্বোচ্চ রফতানিকারকের পুরস্কার পেলো বেক্সিমকো

সর্বোচ্চ রফতানিকারকের পুরস্কার পেলো বেক্সিমকো


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.