X
শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১, ২৭ চৈত্র ১৪২৭

সেকশনস

ঘুরে দাঁড়ানো শেয়ার বাজার ফের গতিহীন

আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৭:০৯

মহামারি করোনার মাঝেও সবচেয়ে উজ্জীবিত ছিল দেশের শেয়ার বাজার। আর্থিক খাতগুলোর মধ্যে এই একটি খাত দীর্ঘদিনের বদনাম ঘুচিয়ে সুনাম অর্জন করে। বিশেষ করে জাতীয় বাজেট ঘোষণার পর থেকেই শেয়ার বাজার ঘুরে দাঁড়ায়। বিনিয়োগকারীদের মাঝেও আস্থা ফিরে আসে।  ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসইর) বাজার মূলধন একসময় ৫ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। কিন্তু গত দেড়মাস ধরে শেয়ার বাজার গতিহীন। গেল ছয় সপ্তাহের টানা পতনের মাঝে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে ৩৪ হাজার ৭৫৪ কোটি টাকা।

শুধু তাই নয়,টানা পাঁচ সপ্তাহের পতনে ডিএসই ৩৬ হাজার ৫১ কোটি টাকা বাজার মূলধন হারানোর পর গেল সপ্তাহে এক হাজার ২৯৭ কোটি টাকা বেড়েছে। এমন অবস্থায় বিনিয়োগকারীদেরকে বাজারের প্রতি আস্থা ফেরানোর পাশাপাশি বাজারকে গতিশীল করা জরুরি বলে মত দিয়েছেন শেয়ার বাজার বিশ্লেষক ও অর্থনীতিবিদরা।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিআইডিএসের গবেষক ড. জায়েদ বখত বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠানের বেশকিছু উদ্যোগের কারণে শেয়ার বাজার ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। বিনিয়োগকারীরাও বাজারের প্রতি আস্থা রাখতে শুরু করেছিল। সেই আস্থা যাতে নষ্ট না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখা জরুরি।’ এক্ষেত্রে বড় বড় প্রতিষ্ঠান যাতে শেয়ার বাজারের প্রতি আগ্রহী হয়, সেই ধরনের উদ্যোগ বেশি বেশি নেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

বাজার বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, পতনের মধ্য দিয়ে আরও একটি সপ্তাহ পার করেছে দেশের শেয়ার বাজার। এ নিয়ে  টানা ছয় সপ্তাহ পতনের মধ্যে থাকলো শেয়ারবাজার। টানা এই দরপতনের মধ্যে পড়ে প্রায় ৩৫ হাজার কোটি টাকা বাজার মূলধন হারিয়েছে প্রধান শেয়ার বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। অবশ্য পতনের মাঝেও গত সপ্তাহে এক হাজার কোটি টাকার ওপরে বাজার মূলধন বেড়েছে।

তথ্য বলছে, বাজার মূলধন হাজার কোটি টাকার ওপরে বাড়লেও গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে কমেছে সবকটি মূল্য সূচক। সেই সঙ্গে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ। গেল সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক কমেছে ১ শতাংশের ওপরে। আর লেনদেন কমেছে ৩৪ শতাংশের ওপরে।

গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসের লেনদেন শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে চার লাখ ৬৬ হাজার ৯৫৫ কোটি টাকা, যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল চার লাখ ৬৫ হাজার ৬৫৮ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে এক হাজার ২৯৭ কোটি টাকা।

আগের সপ্তাহে বাজার মূলধন কমেছিল চার হাজার ৫২ কোটি টাকা। তার আগের চার সপ্তাহে কমেছিল যথাক্রমে— ৯ হাজার ৫৯৪ কোটি টাকা, চার হাজার ৭০৮ কোটি টাকা, আট হাজার ২৭৭ কোটি টাকা এবং ৯ হাজার ৪২০ কোটি টাকা।

অর্থাৎ ছয় সপ্তাহের টানা পতনের মধ্যে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে ৩৪ হাজার ৭৫৪ কোটি টাকা।

বাজার বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৫৯ দশমিক ৬০ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহে সূচকটি কমেছিল ৯ দশমিক শূন্য ৩ পয়েন্ট। তার আগের চার সপ্তাহে কমেছিল ১৬২ দশমিক ৬৫ পয়েন্ট।

 অর্থাৎ ছয় সপ্তাহের টানা পতনে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক কমেছে ৪৯৩ পয়েন্ট।

প্রধান মূল্য সূচকরে পাশাপাশি টানা ছয় সপ্তাহ পতন হয়েছে ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচকের। গত সপ্তাহজুড়ে সূচকটি কমেছে ৩৯ দশমিক ৭৮ পয়েন্ট । আগের সপ্তাহে এই সূচকটি কমেছিল ৫ দশমিক ১২ পয়েন্ট। তার আগের চার সপ্তাহে কমেছিল ৬৩ দশমিক শূন্য ৪ পয়েন্ট।

অপরদিকে, ইসলামি শরিয়াহ ভিত্তিতে পরিচালিত কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই শরিয়াহ্ সূচকও টানা চার সপ্তাহ পতনের পর গত সপ্তাহের আগের সপ্তাহে কিছুটা বেড়েছিল। কিন্তু গত সপ্তাহে এই সূচকটি আবারও পতনের মধ্যে পড়েছে। গেল সপ্তাহে সূচকটি কমেছে ১৬ দশমিক ৬১ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহে সূচকটি বেড়েছিল ৬ দশমিক ১৬ পয়েন্ট।

তার আগের চার সপ্তাহে ইসলামি শরিয়াহ ভিত্তিতে পরিচালিত কোম্পানি নিয়ে গঠিত এই সূচকটি কমেছিল ২৪ দশমিক ৯৭ পয়েন্ট

সবকটি মূল্য সূচকের বড় পতন হলেও গত সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন অংশ নেওয়া যে কয়টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে, কমেছে প্রায় তার সমান সংখ্যক। সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে দাম বাড়ার তালিকায় রয়েছে ১২১টি প্রতিষ্ঠান। দাম কমেছে ১২৬টির। আর ১১৮টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

গত সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৫৮৩ কোটি ৮২ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন গড়ে লেনদেন হয় ৮৮৭ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন কমেছে ৩০৩ কোটি ৭১ লাখ টাকা। গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে দুই হাজার ৩৩৫ কোটি ২৮ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় চার হাজার ৪৩৭ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন কমেছে দুই হাজার ১০২ কোটি ৩৮ লাখ টাকা বা ৪৭ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

/এপিএইচ/

সম্পর্কিত

আরও ১০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা চান গার্মেন্ট ব্যবসায়ীরা

আরও ১০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা চান গার্মেন্ট ব্যবসায়ীরা

করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ কাঁধে নিয়ে নিচে নামতে হয় রামেকে

করোনায় মৃত ব্যক্তির লাশ কাঁধে নিয়ে নিচে নামতে হয় রামেকে

বাজার ও গণপরিবহন থেকে সংক্রমণ বেশি!

বাজার ও গণপরিবহন থেকে সংক্রমণ বেশি!

স্বাস্থ্যবিধি মানছে না অনেক শপিংমল

স্বাস্থ্যবিধি মানছে না অনেক শপিংমল

সৈকতে আরও একটি মৃত তিমি

সৈকতে আরও একটি মৃত তিমি

বিএনপি লকডাউন নিয়ে অপপ্রচার করছে: ওবায়দুল কাদের

বিএনপি লকডাউন নিয়ে অপপ্রচার করছে: ওবায়দুল কাদের

মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় ‘ভিআইপিদের’ নাম উঠবে কবে?

মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় ‘ভিআইপিদের’ নাম উঠবে কবে?

১২ এপ্রিল শেষ হচ্ছে বইমেলা

১২ এপ্রিল শেষ হচ্ছে বইমেলা

সর্বশেষ

বিউগলের সুরে নিভলো গেমসের মশাল

বিউগলের সুরে নিভলো গেমসের মশাল

বিয়েতে ছবি তোলা কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, আহত ৩০

বিয়েতে ছবি তোলা কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, আহত ৩০

ম্যানসিটিকে হারিয়ে দিলো ১০ জনের লিডস

ম্যানসিটিকে হারিয়ে দিলো ১০ জনের লিডস

পারমাণবিক বোমা তৈরিতে আরও একধাপ এগিয়ে গেলো ইরান

পারমাণবিক বোমা তৈরিতে আরও একধাপ এগিয়ে গেলো ইরান

যশোরে করোনায় আ. লীগ নেতার মৃত্যু

যশোরে করোনায় আ. লীগ নেতার মৃত্যু

কেন বলা যাবে না ‘বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণা করেননি’

কেন বলা যাবে না ‘বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণা করেননি’

আরও ১০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা চান গার্মেন্ট ব্যবসায়ীরা

আরও ১০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা চান গার্মেন্ট ব্যবসায়ীরা

সবচেয়ে ভালো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ করবে ভারত, সৌরভের ঘোষণা

সবচেয়ে ভালো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ করবে ভারত, সৌরভের ঘোষণা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আরও ১০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা চান গার্মেন্ট ব্যবসায়ীরা

আরও ১০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা চান গার্মেন্ট ব্যবসায়ীরা

বাড্ডা ও মিরপুরসহ রাজধানীর কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ

বাড্ডা ও মিরপুরসহ রাজধানীর কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ

নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ এলাকায় গ্যাসের চাপ কম থাকবে

নারায়ণগঞ্জ-মুন্সীগঞ্জ এলাকায় গ্যাসের চাপ কম থাকবে

যে কারণে গার্মেন্টস খোলা রাখতে চান মালিকরা

যে কারণে গার্মেন্টস খোলা রাখতে চান মালিকরা

Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.
© 2021 Bangla Tribune