সেকশনস

উচ্ছেদের নামে ব্যক্তি মালিকানাধীন দুটি বাড়ি ভেঙে ফেলার অভিযোগ

আপডেট : ২১ জানুয়ারি ২০২০, ২২:৫৭

উচ্ছেদের সময় ভেঙে ফেলা একটি বাড়ি জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের জায়গা না হওয়ার পরেও অবৈধ দখলদারিত্ব উচ্ছেদের নামে দুটি বাড়ি ভেঙে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি ওই জায়গাটি বুঝিয়েও দেওয়া হচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেছেন বাড়ি দুটির স্বত্বাধিকারীরা। অভিযোগে জানা যায়, গত নভেম্বর মাসে অবৈধভাবে দখলদারিত্বে থাকা বাড়িসহ বিভিন্ন স্থাপনা ভাঙচুর করে জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ। ওই মাসের ২৬ তারিখ সকালে বিনা নোটিশে ৪নং উপশহর এলাকার ওই দুটি বাড়ি ভাঙচুর করা হয়।

সে সময় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী প্রকৌশলী মোর্শেদ মাহমুদ চৌধুরী, মোরশেদ আলম, গোলাম কিবরিয়া, জাহেদুল ইসলাম, অফিস সহকারী সাহাবুদ্দিন ও ইয়াসিন আলী উপস্থিতিতে ঢাকা থেকে আসা নির্বাহী প্রকৌশলী হারিজুর রহমান, উপ-পরিচালক তাজিমুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

বাড়ি দুটি ভাঙার পর বাড়ির মালিক আবু বকর সিদ্দিক সুমন ও আলাউদ্দিন মিলে দিনাজপুরে জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলে নির্বাহী প্রকৌশলী মোরশেদ আলম ও গোলাম কিবরিয়া জেলা প্রশাসকের কাছে যেতে বলেন। পরে জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করা হলে গত ২৩ ডিসেম্বর জেলা প্রশাসক গৃহায়ন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টির সুষ্ঠু সমাধানের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে একটি চিঠি দেন। কিন্তু এরপরেও গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ সঠিক ব্যবস্থা না নিয়ে বিভিন্ন অজুহাতে হয়রানি করছে বলে অভিযোগ করেন মালিকরা। 

একটি বাড়ির স্বত্বাধিকারী আলাউদ্দিন বলেন, ‘পৈত্রিক সম্পত্তি হিসেবে ওই জায়গাটি আমার স্ত্রী মাসুমা বেগমের। সেখানে কয়েক বছর আগে চারতলা ভিত্তি দিয়ে বাড়ি নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ কোনও প্রকার নোটিশ না দিয়েই গত ২৬ নভেম্বর বাড়িটি ভেঙে দেয়। এতে প্রায় ৩০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এখন ওই জায়গাটি আমরা বুঝে চাই। একই সঙ্গে ভেঙে ফেলারও ক্ষতিপূরণও দাবি করছি। আর এভাবে খামখেয়ালি করে স্থাপনা ভেঙে ফেলার ব্যাপারেও ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি।’

আলাউদ্দিনের স্ত্রী মাসুমা বেগম বলেন, ‘ভাঙার সময় বারবার বলা হলেও তারা কোনও কথা শোনেনি। ওই ৪ শতক জায়গা গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ অধিগ্রহণ করেনি। জায়গাটির খাজনা, খারিজ সবই আমাদের। কিন্তু এরপরও ভেঙে ফেলার কোনও মানে হয় না। এই ঘটনার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানাচ্ছি।’

অপর বাড়ির মালিক শিক্ষানবিশ আইনজীবী আবু বকর সিদ্দিক সুমন বলেন, ‘ওই জায়গাটি আমার বাবা আতাউল মাওলার। সেখানে আমাদের ১০১ শতক জায়গার মধ্যে ৬০-৬১ সালে প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ৯৭ শতক জায়গা অধিগ্রহণ করা হয়। বাকি ৪ শতক জায়গা আমাদের দখলেই ছিল। এর আগে ’৯০ ও ’৯৪ সালে জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের কাছে ওই ৪ শতক জায়গা তাদের নয়, এমন অনাপত্তিপত্র নিয়েছি। গত কয়েক বছর আগে আমরা সেখানে স্থায়ীভাবে চারতলা ভিত্তি দিয়ে বাড়ি নির্মাণ করি। কিন্তু গত ২৬ নভেম্বর বাড়ি ভেঙে ফেলেন জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা। এখন তারা আমাদের কোনও কথাই শুনছে না। বারবার তাদের কার্যালয়ে ঘোরাঘুরি করা হলেও কোনও প্রতিকার মিলছে না।’

এ ব্যাপারে দিনাজপুর জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী প্রকৌশলী মোর্শেদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘৪ শতক জায়গার ব্যক্তি মালিকানাধীন স্থাপনা ভাঙচুর করা হয়েছে এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। এরপরই কেন্দ্রীয় সার্ভেয়ার কাগজপত্র নিয়ে গেছেন। তাদের অভিযোগের ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। তবে নকশা ও মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী জায়গাটি আমাদের। এরপরও সিএস ও আরএস দেখে জায়গাটির ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’ এ বিষয়টি নিয়ে কাজ চলছে বলেও জানান তিনি। 

/এমএএ/

সম্পর্কিত

রোহিঙ্গাদের দক্ষ করে তুলতে যেসব উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

রোহিঙ্গাদের দক্ষ করে তুলতে যেসব উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

আলমসাধু-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে স্বামী-স্ত্রী নিহত

আলমসাধু-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে স্বামী-স্ত্রী নিহত

শ্রমিকদের পতাকা মিছিল, মহাসড়কে ১ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ

শ্রমিকদের পতাকা মিছিল, মহাসড়কে ১ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ

ট্রাকের ধাক্কায় ২ রিকশা আরোহী নিহত

ট্রাকের ধাক্কায় ২ রিকশা আরোহী নিহত

বেনাপোল বন্দরে অটোমেশন সফটওয়্যার ও ডরমেটরি ভবন উদ্বোধন

বেনাপোল বন্দরে অটোমেশন সফটওয়্যার ও ডরমেটরি ভবন উদ্বোধন

স্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন মেয়র প্রার্থী

স্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন মেয়র প্রার্থী

ভারতের উপহার ২০ লাখ ডোজ টিকা আসছে বুধবার

ভারতের উপহার ২০ লাখ ডোজ টিকা আসছে বুধবার

দুটি ভেন্টিলেটর পেলো পঞ্চগড় আধুনিক হাসপাতাল

দুটি ভেন্টিলেটর পেলো পঞ্চগড় আধুনিক হাসপাতাল

ক্ষতিকর কেমিক্যাল ও এসিড মিশিয়ে তৈরি হতো ত্বক ফর্সাকারী ক্রিম

ক্ষতিকর কেমিক্যাল ও এসিড মিশিয়ে তৈরি হতো ত্বক ফর্সাকারী ক্রিম

সাপের বিষ পাচারের রুট বাংলাদেশ, নজরদারিতে খামারিরা

সাপের বিষ পাচারের রুট বাংলাদেশ, নজরদারিতে খামারিরা

দেয়াল চাপা পড়ে শিশু নিহত

দেয়াল চাপা পড়ে শিশু নিহত

সর্বশেষ

অগ্রিম টাকা দিলে ১০ দিনের মধ্যে পণ্য ডেলিভারি দিতে হবে

তৈরি হচ্ছে ই-কমার্স পরিচালনার গাইডলাইনঅগ্রিম টাকা দিলে ১০ দিনের মধ্যে পণ্য ডেলিভারি দিতে হবে

অভিনেতা মুজিবুর রহমান দিলু আর নেই

অভিনেতা মুজিবুর রহমান দিলু আর নেই

ঘুষের মামলায় কারাগারে স্যামসাং সাম্রাজ্যের উত্তরাধিকারী লি জে ইয়ং

ঘুষের মামলায় কারাগারে স্যামসাং সাম্রাজ্যের উত্তরাধিকারী লি জে ইয়ং

টিভিতে আজ

টিভিতে আজ

মেরিন ড্রাইভে প্রাচীন মসজিদের সন্ধান

মেরিন ড্রাইভে প্রাচীন মসজিদের সন্ধান

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ৯ কোটি ৬০ লাখ ছাড়িয়েছে

করোনা শনাক্তের সংখ্যা ৯ কোটি ৬০ লাখ ছাড়িয়েছে

‘স্বপ্নের ঘর’ ও ২ শতাংশ জমি পাচ্ছেন তারা

‘স্বপ্নের ঘর’ ও ২ শতাংশ জমি পাচ্ছেন তারা

ঘন কুয়াশায় রাত ৩টা থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ 

ঘন কুয়াশায় রাত ৩টা থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ 

আলজেরিয়ায় অভিবাসনের নামে মানবপাচার  

আলজেরিয়ায় অভিবাসনের নামে মানবপাচার  

শেষ দিনগুলোতে বাইডেনের ডানা ছাঁটার চেষ্টা পম্পেওর

শেষ দিনগুলোতে বাইডেনের ডানা ছাঁটার চেষ্টা পম্পেওর

আটক বাঙালি সৈন্যদের সীমান্ত থেকে পাঞ্জাবে আনা হচ্ছে

আটক বাঙালি সৈন্যদের সীমান্ত থেকে পাঞ্জাবে আনা হচ্ছে

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য অভিন্ন বৃক্ষরোপণ নীতিমালা

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য অভিন্ন বৃক্ষরোপণ নীতিমালা

সর্বশেষসর্বাধিক

লাইভ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

আলমসাধু-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে স্বামী-স্ত্রী নিহত

আলমসাধু-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে স্বামী-স্ত্রী নিহত

শ্রমিকদের পতাকা মিছিল, মহাসড়কে ১ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ

শ্রমিকদের পতাকা মিছিল, মহাসড়কে ১ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ

ট্রাকের ধাক্কায় ২ রিকশা আরোহী নিহত

ট্রাকের ধাক্কায় ২ রিকশা আরোহী নিহত

বেনাপোল বন্দরে অটোমেশন সফটওয়্যার ও ডরমেটরি ভবন উদ্বোধন

বেনাপোল বন্দরে অটোমেশন সফটওয়্যার ও ডরমেটরি ভবন উদ্বোধন

স্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন মেয়র প্রার্থী

স্ত্রীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন মেয়র প্রার্থী

দুটি ভেন্টিলেটর পেলো পঞ্চগড় আধুনিক হাসপাতাল

দুটি ভেন্টিলেটর পেলো পঞ্চগড় আধুনিক হাসপাতাল

দেয়াল চাপা পড়ে শিশু নিহত

দেয়াল চাপা পড়ে শিশু নিহত

পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা, দুই আসামির স্বীকারোক্তি

পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা, দুই আসামির স্বীকারোক্তি

রংপুর মেডিক্যালে শীতজনিত রোগে ৭ দিনে ১৭ মৃত্যু 

রংপুর মেডিক্যালে শীতজনিত রোগে ৭ দিনে ১৭ মৃত্যু 


[email protected]
© 2021 Bangla Tribune
Bangla Tribune is one of the most revered online newspapers in Bangladesh, due to its reputation of neutral coverage and incisive analysis.
X